USA

খালেদার ৫ বছর, তারেকসহ ৪ জনের ১০ বছর কারাদণ্ড : বিশ্ব গণমাধ্যমে খালেদা জিয়ার কারাদণ্ডের খবর


শাহানুজ্জামান টিটু ও মাঈন উদ্দিন আরিফ : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে জিয়া অরফানেজ ট্রাষ্ট দুর্নীতি মামলায় ৫ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। এছাড়া এ মামলায় তার পুত্র তারেক রহমানসহ বাকি চারজনের ১০ বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। আদালত একই সঙ্গে বেগম জিয়াকে জরিমানা করেছেন ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার টাকা।

বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটার দিকে বকশীবাজারে বিশেষ জজ আদালত -৫’এর বিচারক ড. মো: আখতারুজ্জামান এ রায় দেন। বেগম জিয়া এ রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চতর আদালতে আপিল করতে পারবেন।

এ মামলার দণ্ডিত অপর চার আসামী হচ্ছেন, মাগুরার সাবকে এমপি কাজী সালিমুল  হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দনি আহমেদ , প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবকে সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানরে ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

এর আগে বেগম জিয়া বকশীবাজার আদালতে পৌঁছেন দুপুর পৌণে দুইটায়। এরপর তার বিরুদ্ধে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৬৩২ পৃষ্ঠার রায় পড়তে শুরু করেন বিচারক ড. মো: আখতারুজ্জামান ।

বকশীবাজার আদালতে যাওয়ার পথে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার গাড়ি বহর হেয়ার রোডে এসে পৌঁছানোর আগেই বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী এসে যোগ দেয়। পুলিশ এসময় বিএনপির নেতা কর্মীদের ওপর টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করলে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। বিএনপির কর্মীদের ওপর পুলিশ লাঠিচার্জ  করে। এ সময় পুলিশ ১০-১২ রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এরপর কাকরাইল মোড়ে পুলিশ বক্সে ভাঙচুর করে বিএনপি কর্মীরা। ৩ জন পুলিশ আহত হয়। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গাড়িবহর প্রধান বিচারপতির বাসভবনের সামনে কাকরাইল চার্চের মোড়ে পৌঁছালেই পুলিশ টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এ সময় বিএনপির নেতাকর্মীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়ে। এখানে খালেদা জিয়ার গাড়ি ৭-৮ মিনিট দাঁড়িয়ে থাকে। এরপর আবারও আদালতের পথে রওনা দেয়। এর আগে মগবাজারে ছাত্রদল কর্মীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়।বেগম খালেদা জিয়া বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টা ৪২ মিনিটে তার বাসভবন থেকে গাড়ি বহর নিয়ে বকশীবাজার বিশেষ জজ আদালতে রওনা দেন। আদালতে তিনি যান পুলিশের বিশেষ ব্যবস্থায়। সময় লাগে দুই ঘন্টা। ডিএমপি থেকে জানানো হয়েছে খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত নিরাপত্তা কর্মীদেরকে অস্ত্র নিয়ে আদালতে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। খালেদা জিয়াকে নিয়ে গাড়ির বহর সাত রাস্তার মোড় পার হয়ে মগবাজার রেল গেটের আগে এসে পৌঁছালে বিএনপির বিপুল সংখ্যক নেতাকর্ম ী এসে জড়ো হন। তারা স্লোগান দিতে দিতে বেগম জিয়ার গাড়ির বহরের সঙ্গে আদালতের পথে আগাতে থাকেন। খালেদা জিয়ার গাড়ির বহরে সামনে মটর সাইকেলে করে সাত রাস্তায় ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদেরকে ধাওয়া করে। পুলিশী বাধা উপেক্ষা করে মটর সাইকেলে কিছু সংখ্যক নেতাকর্মীরা শোভাযাত্রা করে খালেদা জিয়াকে এগিয়ে নেয়। এসময় ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা স্লোগান দিতে থাকে, আমার নেত্রী,আমার মা, বন্দী হতে দেব না।

খালেদার গাড়ির বহর রমনা থানার কাছে পৌঁছালে বিএনপির নেতাকর্মীদের ভিড়ে গাড়ির গতি শ্লথ হয়ে যায়। এসময় ধীরগতিতে খালেদাকে নিয়ে তার গাড়ি বহর আদালতেরে পথে আগাতে থাকে।

আদালতের পথে পথে নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার মাঝে ইটপাটকেল নিক্ষেপ ছাড়াও পুলিশ টিয়ার সেল ও লাঠি র্চাজ করে। এসময় নেতাকর্র্মীরা পিছু না হটে খালেদা জিয়ার গাড়িবহর ঘিরে আদালতের দিকে এগোতে থাকে।

এদিকে দুপুর দেড়টার দিকে বিশেষ আদালতে প্রবেশ করেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন,আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। মির্জা ফখরুল জানান তার দলের প্রায় শতাধিক নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। তিনি বলেন, আমরা শান্তিপূর্ণ পরিবেশ চাই। কিন্তু সরকারই সহিংসতাকে উস্কে দিচ্ছে।

নয়াপল্টন মডেল থানার সামনে থেকে গাড়িবহরে যোগ দেন যুগ্ম মহাসচিব সাবেক ছাত্রনেতা খায়রুল কবির খোকন, ফজলুল হক মিলন, শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানি।
গুলশান, তেজগাও সাত রাস্তা মোড়, মগবাজার, কাকরাইল মোড়, হ্ইাকোর্ট , চানখারপুল এলাকা দিয়ে বকশী বাজার আদালতে পৌছে। র‌্যাব পুলিশের কড়া নিরাপত্তায় গুলশান নিজ বাসভবন থেকে বের হন তিনি। তার সঙ্গে রয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

এদিকে রাত থেকেই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গুলশান দুই নিজস্ব বাস ভবন ফিরোজার সামনে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা অবস্থান নিয়েছেন। বাস ভবনের সামনের সড়কগুলোতে ব্যারিকেড দেওয়া হয়েছে। বিশেষ করে খালেদা জিয়ার বাসভবনের প্রবেশ পথ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এদিকে নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের সড়কগুলোর একই অবস্থা। পুলিশের কড়া নজরদারি রয়েছে। কাউকে কার্যালয়ে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না। কার্যালয়ের ভিতরে রয়েছেন দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। রাতে সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

বকশী বাজার ও আদালত এলাকায় নেওয়া হয়েছে নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা। আদালত চত্বরে তল্লামী করে ঢোকানো হচ্ছে। আশপাশ এলাকার উচু ভবনে অবস্থান নিয়েছে আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা। তারা সেখান থেকে নজর রাখছেন। পুরো এলাকা আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর কর্ডন করে রেখেছে।

এদিকে দুপুর দেড়টার দিকে বিশেষ আদালতে প্রবেশ করেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন,আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। মির্জা ফখরুল জানান তার দলের প্রায় শতাধিক নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। তিনি বলেন, আমরা শান্তিপূর্ণ পরিবেশ চাই। কিন্তু সরকারই সহিংসতাকে উস্কে দিচ্ছে।

নয়াপল্টন মডেল থানার সামনে থেকে খালেদার গাড়িবহরে যোগ দেন যুগ্ম মহাসচিব সাবেক ছাত্রনেতা খায়রুল কবির খোকন, ফজলুল হক মিলন, শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানি।

গুলশান, তেজগাও সাত রাস্তা মোড়, মগবাজার, কাকরাইল মোড়, হ্ইাকোর্ট , চানখারপুল এলাকা দিয়ে বকশী বাজার আদালতে পৌছে। র‌্যাব পুলিশের কড়া নিরাপত্তায় গুলশান নিজ বাসভবন থেকে বের হন তিনি। তার সঙ্গে রয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

এদিকে রাত থেকেই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গুলশান দুই নিজস্ব বাস ভবন ফিরোজার সামনে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা অবস্থান নিয়েছেন। বাস ভবনের সামনের সড়কগুলোতে ব্যারিকেড দেওয়া হয়েছে। বিশেষ করে খালেদা জিয়ার বাসভবনের প্রবেশ পথ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এদিকে নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের সড়কগুলোর একই অবস্থা। পুলিশের কড়া নজরদারি রয়েছে। কাউকে কার্যালয়ে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না। কার্যালয়ের ভিতরে রয়েছেন দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। রাতে সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

বকশী বাজার ও আদালত এলাকায় নেওয়া হয়েছে নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা। আদালত চত্বরে তল্লামী করে ঢোকানো হচ্ছে। আশপাশ এলাকার উচু ভবনে অবস্থান নিয়েছে আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা। তারা সেখান থেকে নজর রাখছেন। পুরো এলাকা আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর কর্ডন করে রেখেছে।বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ৩৬ টি মামলা রয়েছে। দুর্নীতির পাঁচটি মামলা ছাড়াও খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আরো ৩১টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে ১১টি মামলা নাশকতার। সেই সঙ্গে রয়েছে মানহানি এবং রাষ্ট্রদ্রোহের বেশ কিছু মামলা। ১৫ আগস্টে তার জন্মদিনটি ভুয়া এই অভিযোগেও একটি মামলা রয়েছে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে।৫ টি দুর্নীতির মামলার মধ্যে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় আজ। বাকী চারটি মামলার মধ্যে রয়েছে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট, নাইকো, গ্যাটকো এবং বড়পুকুরিয়া দুর্নীতি মামলা। এই মামলাগুলোর মধ্যে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলা বিচারাধীন। বাকী নাইকো, গ্যাটকো এবং বড়পুকুরিয়া দুর্নীতি মামলায় পুলিশ এখনো চার্জশিট দেয়নি।রাজধানীতে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। জিয়া অরফানেজ মামলার রায় শুনতে আজ আদালতে হাজির হবেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। সকাল দশটার পর তার আদালতের উদ্দেশ্যে রওনা হওয়ার কথা রয়েছে।

কারাগারে খালেদা জিয়া

সজিব খান : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে জিয়া অরফানেজ ট্রাষ্ট দুর্নীতি মামলায় ৫ বছরের কারাদণ্ড দেওয়ার পর তাকে পুরাতন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নেওয়া হয়েছে। মামলায় তার পুত্র তারেক রহমানসহ বাকি চারজনের ১০ বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। আদালত একই সঙ্গে বেগম জিয়াসহ সকলকে ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন।

বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটার দিকে বকশীবাজারে বিশেষ জজ আদালত -৫’এর বিচারক ড. মো: আখতারুজ্জামান এ রায় দেন। বেগম জিয়া এ রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চতর আদালতে আপিল করতে পারবেন।

এ মামলার দণ্ডিত অপর চার আসামি হচ্ছেন, মাগুরার সাবকে এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দনি আহমেদ , প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবকে সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানরে ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

এদিকে রায় ঘোষণা হওয়ার পর খালেদা জিয়ার আইনজীবী জানান, রায়ের কপি পাওয়ার পর আপিল করা হবে।

বৃহস্পতিবার রায় ঘোষণার সময় মামলার প্রধান আসামি খালেদা জিয়াসহ উপস্থিত ছিলেন এ মামলার আসামি সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ।

এর আগে গত ২৫ জানুয়ারি ১৬ কার্যদিবসে আসামিপক্ষ ও রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তিতর্কের শুনানি শেষে রায় ঘোষণার জন্য আজকের দিন ঠিক করেন আদালত।

বিশ্ব গণমাধ্যমে খালেদা জিয়ার কারাদণ্ডের খবর

জাহিদ হাসান : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়কে ঘিরে আবারো আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের শিরোনাম হয়েছে বাংলাদেশ। বৃহস্পতিবার বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রভাবশালী সব সংবাদমাধ্যম বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আদালতের দেয়া ৫ বছরের কারাদ-ের রায় ব্রেকিং নিউজ আকারে প্রচার করেছে।

ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসি এক প্রতিবেদনে বলছে, দুর্নীতির মামলায় বাংলাদেশের বিরোধীদলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদ- দিয়েছেন আদালত। ঢাকার আদালত খালেদাকে ওই সাজা দিয়েছেন। রায় ঘোষণাকে কেন্দ্র করে ঢাকার রাস্তায় খালেদার হাজার হাজার সমর্থককে ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করেছে।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের আন্তর্জাতিক সহায়তা আত্মসাতের অভিযোগ উঠলেও ৭২ বছর বয়সী খালেদা তা অস্বীকার করেছেন।

বিবিসি বলছে, দেশটির প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী খালেদার বিরুদ্ধে আরো এক ডজনের বেশি মামলা ঝুলে রয়েছে।

তবে দুর্নীতির একই মামলায় খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমানকে ১০ বছরের দ- দিয়েছেন আদালত। সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও দেশটির প্রধান বিরোধী নেত্রী খালেদা জিয়ার রায় ঘিরে বাংলাদেশে সর্বোচ্চ সতর্কতা গ্রহণ করা হয়েছে। বিবিসি বলছে, আগামী ডিসেম্বরে দেশটির জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা থাকলেও কারাদ- হওয়ায় এ নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না তিনি।

ফরাসি বার্তাসংস্থা এএফপি বলছে, বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েছে বিরোধীদলীয় কর্মী-সমর্থকরা।

ভারতীয় সরকারি বার্তাসংস্থা পিটিআই বলছে, বৃহস্পতিবার বাংলাদেশের বিরোধীদলীয় নেত্রী ও দুই বারের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে দুর্নীতির মামলায় ৫ বছরের কারাদ- দিয়েছেন দেশটির আদালত। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের অর্থ আত্মসাতের মামলায় তিনি এ দ- পেয়েছেন। একই মামলায় খালেদার ছেলে তারেক রহমান ও আরো অন্য চার আসামিকে ১০ বছরের দ- দেয়া হয়েছে।

ভারতীয় প্রভাবশালী দৈনিক দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন বলছে, দুর্নীতির মামলায় অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিরোধী নেত্রী খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদ- দিয়েছেন ঢাকার বিশেষ একটি আদালত।

এছাড়াও ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া, এনডিটিভি, নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস, পাকিস্তানি দৈনিক ডন, ডেইলি পাকিস্তান, মার্কিন সংবাদসংস্থা এপি, সিএনএন, দৈনিক ওয়াশিংটন পোস্ট, দ্য নিউইয়র্ক টাইমস, বিট্রিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ানসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সংবাদমাধ্যমে খালেদার দ-ের খবর গুরুত্ব সহকারে প্রকাশ করা হয়েছে।

উল্লেখ, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় একটি মামলা করে দুদক।

২০১০ সালের ৫ আগস্ট তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন দুদকের উপ-পরিচালক হারুন-অর-রশীদ। ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক বাসুদেব রায়।

মামলায় সাক্ষ্য দিয়েছেন ৩২ জন। ১২০ কার্যদিবসের বিচারকার্য শেষ হয়েছে ২৩৬ দিনে। আত্মপক্ষ সমর্থনে সময় গেছে ২৮ দিন। যুক্তি উপস্থাপন হয়েছে ১৬ দিন এবং আসামিপক্ষ মামলাটির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে উচ্চ আদালতে গেছেন ৩৫ বার। গত ২৫ জানুয়ারি রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শেষে রায় ঘোষণার জন্য ৮ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য ছিল। আমাদের সময়.কম


Leave a Comment